শনিবার ১৫ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

বিএনপি টিকবে কি না, সন্দেহ: সুরঞ্জিত

প্রকাশঃ ১০ জানুয়ারি, ২০১৬

ভুল’ রাজনীতির কারণে বিএনপি অস্তিত্বের সঙ্কটে রয়েছে বলে দাবি করেছেন বর্ষীয়ান রাজনীতিক সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।

২০ দলীয় জোট ছাড়ল ইসলামী ঐক্যজোট

বিএনপির দীর্ঘ দিনের মিত্র ইসলামী ঐক্যজোটের ২০ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার দিকে ই্ঙ্তি করে শনিবার এক অনুষ্ঠানে বক্তব্যে এই দাবি করেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের এই সদস্য।

সুরঞ্জিত বলেন, “ইসলামী ঐক্যজোট গেছে, আরও অনেকে যাই যাই করছে। এভাবে চলতে থাকলে শেষ পর্যন্ত বিএনপি টিকবে কি না, সন্দেহ।

“ভুল রাজনীতি করলেই এমন দশা হয়। যেমন মুসলিম লীগ ও জাসদের ফালাফালি এখন নেই।”

ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ নেজামী বৃহস্পতিবার ২০ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিলে তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে আলোচনা চলছে।

এর আগে গত বছর বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সমশের মবিন চৌধুরী ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এম এম শাহরিয়ার রুমি ঘোষণা দিয়ে রাজনীতি ছেড়েছিলেন।

বিএনপি তাদের জোট ও দল ভাঙার জন্য ক্ষমতাসীনদের দায়ী করলেও আওয়ামী লীগ নেতারা তা প্রত্যাখ্যান করে আসছেন।

সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের গড়া দল বিএনপি তার স্ত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দুবার ক্ষমতায় গেলেও দশম সংসদ নির্বাচন বয়কটের কারণে এখন তারা সংসদেও নেই।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের সমালোচনা করে সুরঞ্জিত বলেন, “শুধু কিছু ভুলের কথা বলে কৌশলী বক্তব্য দিলেই হবে না। স্পষ্ট করে বলতে হবে, তারা কী কী ভুল করেছে? আর তার খেসারত কী দেবে?

“স্বীকার করলে পুরোটাই করতে হবে। স্পষ্ট করে অপরাধ স্বীকার করে ভবিষ্যতে ভুল না করার প্রতিশ্রুতি দিলে ক্ষতি নেই, বরং লাভই বেশি।”

বিএনপির বর্তমান অবস্থা বিশ্লেষণ করে প্রবীণ এই রাজনীতিক বলেন, “সিদ্ধান্ত খালেদা জিয়ার, আর বুদ্ধি তারেকের- এভাবে শুদ্ধ রাজনীতি হতে পারে না। জামায়াতকে ছাড়তে হবে, জ্বালাও-পোড়াও বন্ধ করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হলে শুদ্ধ রাজনীতি হতে পারে।”

কাকরাইলে ইনস্টিটিউট অফ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে চলমান রাজনীতি বিষয়ে ‘নৌকা সমর্থক গোষ্ঠী’র আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সুরঞ্জিত।

সরকার ঘোষিত নতুন বেতন কাঠামোর বিষয়ে সবাইকে ‘সন্তুষ্ট’ করে এগোতে সরকারকে পরামর্শ দেন সাবেক এই মন্ত্রী। শিক্ষকদের মর্যাদার পাশাপাশি সম্মানজনক বেতন দিতেও সুপারিশ করেন তিনি।

“কিছু সিনিয়র মন্ত্রী উল্টা-পাল্টা বক্তব্য দিয়ে প্যাঁচ লাগান। শুধু নিজেদের সুবিধা দেখলেই হবে না। দেশটি আমলাতান্ত্রিক নয়, এটি প্রজাতন্ত্র,” বলেন সুরঞ্জিত।