শনিবার ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৯শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

রাব্বীর অভিযোগ মামলা হিসেবে নেওয়ার নির্দেশ

প্রকাশঃ ১৮ জানুয়ারি, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সেইসঙ্গে রাব্বীকে হেফজতে নিয়ে নির্যাতন কেন অসাংবিধানিক হবে না- তাও জানতে চেয়েছে আদালত।

সুপ্রিম কোর্টের দুই আইনজীবী ও এক গণমাধ্যমকর্মীর করা একটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি এ কে এম সাহিদুল হকের বেঞ্চে সোমবার এই রুল জারি করে।

রিট আবেদনে নির্যাতনের ঘটনার বিচার বিভগীয় তদন্ত এবং তিন কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আদেশ চাওয়া হলেও আদালত সেই নির্দেশ দেয়নি।

যার বিরুদ্ধে অভিযোগ, সেই এস আই মাসুদ শিকদারকে গ্রেপ্তারের কোনো নির্দেশনাও আদালত থেকে আসেনি।

তেজগাঁও পুলিশের উপকমিশনারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেছিলেন রাব্বী। সেই লিখিত অভিযোগ এজাহার হিসেবে গণ্য করতেই আদালত নির্দেশ দিয়েছে।

নির্যাতন নিয়ে আদালত যে রুল দিয়েছে- দুই সপ্তাহের মধ্যে স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, পুলিশের মহা পরিদর্শক, তেজগাঁও পুলিশের উপ কমিশনার, মোহাম্মদপুর থানার ওসি এবং এস আই মাসুদ শিকদারকে তার জবাব দিতে বলা হয়েছে।

তিন আবেদনকারী ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান, এস এম জুলফিকার আলী এবং রেডিও ধ্বনির নিউজ ব্রডকাস্টার জাহিদ হাসানের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দ কুমার রায়।

গত ৯ জানুয়ারি রাতে মোহাম্মদপুর জেনেভা ক্যাম্পের কাছে বাংলাদেশ ব্যাংকের কমিউনিকেশন্স বিভাগের কর্মকর্তা গোলাম রাব্বীকে আটক করে পুলিশ। পরে তাকে মাদকসেবী বানানোর ভয় দেখিয়ে এসআই মাসুদ অর্থ আদায়ের চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ।

সে সময় রাব্বীকে মারধরও করা হয়। ডান হাতের কনুই ও বাঁ পায়ে ক্ষত নিয়ে তিনি এখনও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

তবে ওই অভিযোগ অস্বীকার করে এসআই মাসুদ বলেছেন, এতো রাতে রাব্বী কেন ওই এলাকায় গিয়েছিলেন, তার কোনো ‘সদুত্তর’ তিনি দিতে পারেননি।

ওই অভিযোগ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে পুলিশ কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে মাসুদ শিকদারকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে।