শনিবার ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৬শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

বঙ্গোপসাগরে ট্রলারসহ ১০ ভারতীয় জেলে আটক

প্রকাশঃ ২৩ জানুয়ারি, ২০১৬

বঙ্গোপসাগরের বাংলাদেশ জলসীমায় অবৈধভাবে প্রবেশ করে মৎস্য আহরণের সময় একটি ট্রলারসহ ১০ ভারতীয় জেলেকে আটক করা হয়েছে। মংলা নৌবাহিনীর সদস্যরা বৃহস্পতিবার রাতে বঙ্গোপসাগরের ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকা থেকে ওই ভারতীয় জেলেদের আটক করেছে।

শুক্রবার বিকেলে বাগেরহাট চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত তাদের জেলা কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

অনুপ্রবেশকারী জেলেদের মধ্যে রয়েছে, সঞ্জিত দাস (২৬), হারাধন দাস (৪৫), কিশোর দাস (৫০), প্রভাত দাস (২২), শ্বেত দাস (৪৫), অমল দাস (২৪), গুরুধন দাস (৩০), সৌরভ দাস (২০), একাদশী মন্ডল (৪০) ও সঞ্জিত দাস (২৩)। তাদের বাড়ি পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার কাকদ্বীপ থানার বিভিন্ন গ্রামে।

নৌবাহিনীর বিএনএস কর্ণফুলী জাহাজের পেটি অফিসার এমশাহ আলম জানান, বঙ্গোপসাগরের ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকায় নিয়মিত টহল দেয়ার সময় বাংলাদেশ জলসীমায় অনুপ্রবেশ করে মাছ শিকার করার অভিযোগে এফবি সনাতন ট্রলারসহ ১০ ভারতীয় জেলেকে আটক করা হয়। এসময় ওই ট্রলার থেকে বিপুল পরিমান মাছ উদ্ধার করা হয়। জব্দকৃত এসব মাছ পরে নিলামে এক লাখ ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয় এবং আটক জেলেদের এদিন বিকেলে মংলা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

মংলা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লুৎফর রহমান জানান, আটক ভারতীয় জেলেদের বিরুদ্ধে নৌবাহিনীর পেটি অফিসার এম শাহ আলম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। বিকেলে আদালতের মাধ্যমে আটক জেলেদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশের জলসীমায় অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করে মাছ শিকারের অভিযোগে বিভিন্ন সময়ে ১৭৯ জনকে আটক হয়। যার মধ্যে একজন আটক হবার পর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশের বিভিন্ন কারাগারে আটক ১৭৮ ভারতীয় জেলেকে গত ১৪ জানুয়ারি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে পুশব্যক করা হয়।