মঙ্গলবার ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২২শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

মামলা নিষ্পত্তি না হলেও নির্বাচনের সিদ্ধান্ত ইসির!

প্রকাশঃ ০৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬

নির্বাচন হয়েছে ২০১১ সালে। সে নির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচিতও হয়েছেন দুই কাউন্সিলর। কিন্তু তাদের ওয়ার্ডের সীমানা নিয়ে দায়ের হওয়া একটি মামলার কারণে তারা শপথ নিতে পারেননি। এ অবস্থায় অতিবাহিত হয়েছে প্রায় পাঁচ বছর। কিন্তু এরই মধ্যে সেখানে আরেকটি সাধারণ নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এ ঘটনাটি ঘটছে রংপুর জেলার কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ পৌরসভায়। ২০১১ সালে এ পৌরসভায় মেয়রসহ সবগুলো কাউন্সিলর পদেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বিজয়ীরা যথাসময়ে শপথগ্রহণ করে দায়িত্ব বুঝে নিলেও একজন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর এবং একজন সাধারণ কাউন্সিলর তা পারেননি। কেননা, তাদের আসনের (ওয়ার্ড) সীমানা নিয়ে একটি মামলা হওয়ায় তাদের শপথ নেওয়ার ক্ষেত্রে আইনি বাধা ছিলো। মামলাটি এখনো চলমান রয়েছে।

ইসি’র নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, সংশ্লিষ্ট পৌরসভার ওই দুই আসনের সীমানা নিয়ে আইনি জটিলতার নিরসন না হওয়া সত্ত্বেও এ পৌরসভায় নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি। তবে, ওই দুই আসন বাদ রেখেই অন্য ওয়ার্ড এবং মেয়র পদে নির্বাচন করা যায় কি-না, সেটিও ভাবছে সংস্থাটি।

তবে ইসির উপ-সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তারা আইনি জটিলতা না কাটলে নির্বাচন কিভাবে সম্ভব সে প্রশ্নের উত্তরও খুঁজছেন।

ইসি’র নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার প্রস্তুত করা নির্বাচন উপযোগী পৌরসভার তালিকা থেকে জানা গেছে, হারাগাছসহ বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) ১০টি পৌরসভার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ঝালকাঠি, কবিরহাট, নাঙ্গলকোট, ভাঙ্গা, চকরিয়া, মহেশখালী, সোনাগাজী ও কালীগঞ্জ।