রবিবার ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২০শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় সংঘর্ষ, আহত-৩০

প্রকাশঃ ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬

জেলা প্রতিনিধিঃ সরাইলে ইউপি আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় কাউন্সিলারের নাম ঘোষনাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত হয়েছে ৩০ জন। । ভাংচুর করা হয়েছে মসজিদ। শুক্রবার বিকালে উপজেলার চুন্টায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সরাইল থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় লোকজন জানায়, পূর্ব ঘোষনা অনুযায়ী বিকাল সাড়ে ৪টায় চুন্টা সেনবাড়ির সামনের খালি মাঠে সোলাইমান মিয়ার সভাপতিত্বে শুরু হয় বর্ধিত সভা। এক পর্যায়ে ইউিপ আ’লীগের সম্পাদক ও সভার উপস্থাপক মোঃ শাহজাহান মিয়া চুন্টা ২নং ওয়ার্ডের সম্পাদক (কাউন্সিলর) মোঃ হামদু মিয়ার নাম ঘোষনা করেন। এতে মৌখিকভাকে আপত্তি জানান ছাত্রলীগ সভাপতি মোঃ এখলাছুর রহমান। মুহুর্তের মধ্য বেঁধে যায় সংঘর্ষ। সভার চেয়ার দিয়ে শুরু হয় ঢিল ছুড়াছুড়ি। চুন্টা বাজারের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মূহুর্তরে মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। সভায় আগত দলীয় লোকজন এদিক ওদিক ছুটাছুটি শুরু করে। সভার অতিথিদের দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। আগামী কা্উন্সিলে সম্পাদক পদপ্রার্থী চেয়ারম্যান শেখ মোঃহাবিবুর রহমান ও শাহজাহান মিয়ার লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। চেয়ারম্যানের বাড়িতে হামলা চালানোর চেষ্টা করে প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় হাবিবুর রহমানের বাড়ি সংলগ্ন মসজিদ ভাংচুর করে দাঙ্গাবাজরা। প্রায় দেড় ঘন্টা চলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ। ওসি’র নেতৃত্বে সরাইল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। তবে ওই এলাকায় এখনো থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। নরসিংহপুর ২ নং ওয়ার্ডের সভাপতি মোঃ ছফি উল্লাহ বলেন, হামদু মিয়া (৫৮) কোন এক সময় সম্পাদক ছিল। এলাকায় বসবাস না করায় তার পরিবর্তে বেশ কয়েক বছর আগেই ইউপি আ’লীগ সর্বসম্মতিক্রমে আক্কাসকে সম্পাদক করেছে। আক্কাসই বৈধ সম্পাদক। হামদু মিয়া নয়। না প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক নেতা বলেন, আগামী কাউন্সিল ভন্ডুল করে দিতে গত কিছুদিন ধরে এলাকায় নানা ধরনের ষড়যন্ত্র চলছিল। এ ঘটনা তারই একটা অংশ। সভায় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক অ্যাডভোকেট নাজমুল হোসেন, যুগ্ম আহবায়ক-১ উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম শি্উলী আজাদ, যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট আবদুর রাশেদ ও খায়রুল হুদা চৌধুরী বাদল। সরাইল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আলী আরশাদ বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।