মঙ্গলবার ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২২শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন

প্রকাশঃ ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টারঃঢাকার মিরপুরে এক প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণের দায়ে এক মাছ ব্যবসায়ীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।
মঙ্গলবার ঢাকার ৫ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক তানজিনা ইসমাইল দুই বছর আগের এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।
আসামি জাহাঙ্গীর আলম মুজাহিদকে (৩০) যাবজ্জীবন সাজার পাশাপাশি দুই লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারক।
আসামি মুজাহিদ মামলার শুনানি চলাকালে জামিনে মুক্তি পেয়ে পালিয়েছেন। তার অনুপস্থিতিতেই আদালত রায় ঘোষণা করে।
নথি থেকে জানা যায়, মিরপুরের ওই মাছ ব্যবসায়ী দক্ষিণ পীরেরবাগের এক বাসায় সাবলেট থাকতেন। ২০১৪ সালের ২৯ মার্চ বাসায় অন্য কেউ না থাকার সুযোগে ওই বাসার এক প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণ করেন মুজাহিদ।
পরে বিষয়টি জানাজানি হলে শিশুটির বাবা ২ এপ্রিল মিরপুর মডেল থানায় মামলা করেন। ওই বছর ৩১ মে পুলিশ মুজাহিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।
ধর্ষণের শিকার ওই শিশুসহ মোট সাতজনের জবানবন্দি শুনে বিচারক মঙ্গলবার রায় ঘোষণা করেন।
বলা হয়, আসামির কাছ থেকে জরিমানা হিসেবে দুই লাখ টাকা আদায় করে তার মধ্যে এক লাখ ক্ষতিপূরণ হিসেবে শিশুটির পরিবারকে দিতে হবে। বাকি টাকা সরকারের কোষাগারে যাবে।
পর্যবেক্ষণে বিচারক বলেন, “আসামি বাদীর পরিবারের সঙ্গে বসবাসের সুযোগ নিয়ে একটি অবুঝ প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণ করে। এতে আসামি যে পশুত্বের বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছে এবং মানবকূলের মৌলিক বিশ্বাসের জায়গাটি ধ্বংস করে মানবতাকে যেভাবে ভূলুণ্ঠিত করেছে, তার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে- সেজন্যেই এ শাস্তি।”
ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ কৌঁসুলি আলী আসগর স্বপন জানান, মহিলা আইনজীবী সমিতি এ মামলা চালাতে শিশুটির পরিবারকে আইনি সহায়তা দেয়।
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডই সর্বোচ্চ সাজা বলে জানান এই আইনজীবী।