সোমবার ১৭ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৪ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিজয়নগরে সংঘর্ষে নিহত এক, আহত নয়

প্রকাশঃ ০৩ মার্চ, ২০১৬

নিজস্ক প্রতিবেদক: বৃহষ্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিজয়নগর উপজেলায় কথা কাটাকাটির জের ধরে অভয় পহ্মের সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে, এসময় জাকিরের লোকজন একলাস মিয়া (৪০) নামের একজনকে কুপিয়ে হত্যা করেন। এসময় স্টেশনের কুলি সর্দারসহ নয়জন আহত হয়েছে। দুপুর একটার দিকে উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের মুকুন্দপুর রেলস্টেশন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত একলাস মিয়া উপজেলার কামালমোড়া গ্রামের মৃত:আবেদ মিয়ার ছেলে। এসময় সঙ্গে থাকা একলাসের বড় ভাই মুকুন্দপুর রেলস্টেশনের কুলিদের সর্দার সাঈদ মিয়া (৬০), বেলায়েত মিয়া (২৫), জিনু মিয়া (২২) নান্নু মিয়া (৬০) গুরুতর আহত হন। সাঈদ মিয়ার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
পাহাড়পুর ইউপি চেয়ারম্যান কাজী মাঈন উদ্দিন চিশতি সেজামোড়া ইউপি সদস্য মোঃ বাসির মিয়া ও বিজয়নগর থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সিলেট থেকে আখাউড়াগামী একটি ডেমু ট্রেন মুকুন্দপুর রেলস্টেশনের দাড়ায় । একই ট্রেনে মনতলা থেকে বিজয়নগর উপজেলার সেজামোড়া গ্রামের বজলুর রহমানের ছেলে জাকির হোসেন কয়েকজন বন্ধু নিয়ে বিজয়নগরে আসছিলেন। ট্রেনে থেকে ডাব নামানোর সময় ডাব জাকিরের শরীরে লাগলে ওই নিহত একলাসের সঙ্গে জাকিরের কথা কাটাকাটি হয়। এসময় একলাস ও তার বড় ভাই স্টেশনের কুলিদের সর্দার আবু সাঈদ জাকিরকে ফিরিয়ে দিতে গেলে তাদের সঙ্গেও জাকিরের কথা কাটাকাটি হয়। পরে জাকিরের গ্রামের লোকজন খবর পেয়ে। কিছুক্ষণৈর মধ্যে জাকির ও গ্রাম থেকে লোকজন 12791028_973295096086367_2485599487780079028_nআসা আনুমানিক ২০ জন দেশীয় অস্ত্র লাঠি, রামদা, ছুরি নিয়ে এসে একলাস ও তাঁর ভাই সাঈদের উপর হামলা চালাই পিটিয়ে ও কুপিয়ে একলাস মিয়াকে হত্যা করে। হামলায় আবু সাঈদ, বেলায়েত মিয়া, জিনু মিয়া ও নান্নু মিয়াসহ অন্তত অভয় পহ্মের নয়জন আহত হয়।
বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল পাশা বলেন, । লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।