বৃহস্পতিবার ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৪শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

ভয়াবহ যুদ্ধাপরাধীর রায় বহালে আমরা খুশি’

প্রকাশঃ ০৮ মার্চ, ২০১৬

ঢাকা : মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের শীর্ষ নেতা মীর কাসেম আলীর করা আপিলের রায়ে মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখায় আদালতকে ধন্যবাদ জানিয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ড. তুরিন আফরোজ বলেছেন, রায় বহাল থাকায় প্রসিকিউশনের সবাই খুশি।

মঙ্গলবার (৮ মার্চ) সকালে আপিল বিভাগের দেয়া রায়ের পরপরই এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি আরও বলেন, ‘প্রসিকিউটর হিসেবে এ রায়ে আমি খুশি। যদিও এ মামলায় প্রসিকিউশনের অদক্ষতা নিয়ে কথা হয়েছে। আমরা রায় হওয়ার পর আমাদের দুর্বলতা খুঁজে বের করব।’

তুরিন আফরোজ বলেন, ‘মীর কাসেম আলী ডালিম হোটেলে একটি টর্চার সেল খুলে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষদের আটক, নির্যাতন, হত্যাসহ বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধ করে। আর এ রকম ভয়াবহ একজন যুদ্ধাপরাধীর সাজার রায় বহাল থাকায় আমরা খুশি।’

সকালে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ মীর কাসেম আলীর ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রাখেন।

চট্টগ্রাম অঞ্চলে মানবতাবিরোধী অপরাধের এই মূল হোতার বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে শহীদ কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দিনসহ ছয়জনকে হত্যা-গণহত্যার দায় (১১ নম্বর অভিযোগ) প্রমাণিত হওয়ায় তাকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেয়া সর্বোচ্চ দণ্ডাদেশ বহাল রাখেন আদালত।

১১ নম্বর ছাড়াও ১২ নম্বর অভিযোগে রঞ্জিত দাস লাতু ও টুন্টু সেন রাজুকে হত্যার দায়েও কাসেমের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন ট্রাইব্যুনাল। তবে চূড়ান্ত রায়ে প্রমাণিত না হওয়ায় এ অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেন আপিল বিভাগ।

৪, ৬ ও ১২ নম্বর অভিযোগ থেকে মীর কাসেম আলীকে খালাস দেয়া হয় আর সাজা বহাল রাখা হয় ২, ৩, ৭, ৯, ১০, ১১ ও ১৪ নম্বর অভিযোগের।2016_03_08_11_58_13_sCjwEUOLifZCQrxgEfU45b2jFWAO7H_original