মঙ্গলবার ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২২শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

ইভটিজিং নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

প্রকাশঃ ১৯ মার্চ, ২০১৬

নিজস্বপ্রতিবেদক: স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্তের জের ধরে হবিগঞ্জে দু’দল গ্রামের সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন। এ সময় বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটে। গুরুতর অবস্থায় সাত জনকে সিলেট ও ২০ জনকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
শনিবার সকালে হবিগঞ্জ শহরতলীর আনোয়ারপুর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে হবিগঞ্জ শহরতলীর নোয়াগাঁও গ্রামের ধলাই মিয়ার মেয়ে ও হবিগঞ্জ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী রাসমিনা আক্তার স্কুল থেকে বাড়িত ফিরছিল। পথে আনোয়ারপুর গ্রামের কয়েকজন যুবক তাকে উত্যক্ত করে। বিষয়টি জানার পর রাসমিনের বড় ভাই নিজাম উদ্দিন ঘটনাস্থলে আসেন। এ সময় উত্যক্তকারীদের সঙ্গে তার বাকবিতণ্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।
বিকেলে বিষয়টি এলাকায় প্রচার হলে দুই গ্রামের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় ফুল মিয়া, তোফাজ্জুল, মন্নার আলী, জসিম উদ্দিন, তোঁতা মিয়া, শাহ আলম ও জামিলকে সিলেট এবং পলাশ, আল-আমিন, জিয়াউল, সালেক, রায়হান, আসকির, সুমন, শিপন, জুনু, নাঈম, আজমত আলী, জাহাঙ্গীর মিয়াসহ ২০ জনকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের সময় আনোয়ার পয়েন্টে বেশ কয়েকটি দোকান ও বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করা হয়।
হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন সোনারবাংলা৭১.কমকে 2016_03_19_18_11_22_DF4np9ftPQXElyVoJEb5cj5SU5IN0C_originalজানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে তারা ১০ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।