শুক্রবার ২৮শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৫শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

খুলনায় মাহফিল শেষে ফেরার পথে সিএনজি ও ডাম্পার ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩

প্রকাশঃ ০৯ জানুয়ারি, ২০২২

জেলা প্রতিনিধি:আলিয়া কামিল মাদ্রাসার মাহফিল থেকে ফেরার পথে খুলনা-মোংলা মহাসড়কে একটি সিএনজিচালিত তিন চাকার যান ও ডাম্পার ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আরো তিনজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। শনিবার (৮ জানুয়ারি) রাত ১২টা ১০ মিনিটের দিকে বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার শ্যামবাগাত এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- হাফেজ আব্দুল্লাহ, আব্দুল গফুর ও সালাহউদ্দীন। আহতদের মধ্যে দুজন ও নিহতরা সবাই বাগেরহাটের চুলকাঠি এলাকার হাকিমপুর মাদ্রাসার ছাত্র। অপর আহত ব্যক্তি তিন চাকার চালক। তাদের উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নিহতদের মধ্যে হাফেজ আব্দুল্লাহ সদর উপজেলার রণজিতপুর এলাকার হোসাইনের ছেলে। আব্দুল গফুরের বাড়ি রামপালের ঝনঝনিয়ায় এবং সালাহউদ্দীনের বাড়ি সাতক্ষীরায়। আব্দুল্লাহ দাওরায় হাদিস শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী এবং অপর দুজন অন্যান্য শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন।

আহতরা জানান, তারা শনিবার সন্ধ্যায় খুলনা আলিয়া কামিল মাদ্রাসায় আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেন। রাতে খুলনা থেকে সিএনজি দিয়ে মাদ্রাসার উদ্দেশ্যে রওনা দেন। ফকিরহাটের শ্যামবাগাতে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ডাম্পার ট্রাকের সাথে তাদের মুখোমুখি ধাক্কা লাগে। এতে ঘটনাস্থলে তিনজন মারা যান। সেখান থেকে ডাম্পার ট্রাকটি পালিয়ে যায়।

মাওলানা আব্দুল মাবুদ জানান, মাদ্রাসার ছাত্ররা শনিবার সন্ধ্যায় খুলনা আলিয়া কামিল মাদ্রাসায় আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সম্মেলনে অংশগ্রহণ করে। রাতে খুলনা থেকে মাহেন্দ্রযোগে মাদ্রাসার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। আসার পথে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ডাম্পার ট্রাকের সাথে তাদের মুখোমুখি ধাক্কা লাগে। এতে ঘটনাস্থলে তিনজন মারা যায়। এ সময় মাহেন্দ্রের আরো ৪ যাত্রী আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে ।

এ ব্যাপারে কাটাখালী হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আলী হোসেন জানান, বর্তমানে আমরা ঘটনাস্থল আছি। দুর্ঘটনায় আহত-নিহত সবাইকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ঘন কুয়াশার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। ঘাতক ডাম্পার ট্রাকটি পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করা যায়নি।